গোল্ডেন বীচের নাম শুনেছেন কখনও? বা সুজুকি বীচ? হ্যা পতেঙ্গা বীচের উপর দিয়ে যে রোডটা গেছে, ওটা ধরে ১৫ মিনিট ড্রাইভ করলে পৌঁছে যাবেন গোল্ডেন বীচে। আর গাড়ি পার্ক করতে পারবেন একেবারে বঙ্গোপসাগরের ধারে। পানির ছিটাও লাগতে পারে! আমার মতে এটা অসম্ভব ভাবের জায়গা।

মূল পতেঙ্গা বীচে আজকাল হাঁটা যায় না এত ভীড়ের ঠেলায় আর আছে নব্য প্রেমিক প্রেমিকাদের দাপাদাপি যা অনেক সময় একটু বিব্রতও করে। সো, একটু বেটার জায়গা খোঁজা তখন ইম্পোটরটেন্ট হয়ে গিয়েছিল আর আমার ফিল্মের লোকেশন ও দরকার ছিল।

গোল্ডেন বীচ মেইন পয়েন্টে করা যাচ্ছিল না শুটিং কারণ ক্যামেরা বের করার সাথে সাথে হাজারো মানুষের ভিড়। তো একটু ভেতরের দিকে গিয়েই পেলাম এই জায়গার সন্ধান। আপনারা হয়তো অনেকেই চেনেন এটা। কিন্তু আমি শুটিং এর সময় চিনেছি। আর এর আগে বাংলাদেশে তেমন একটা আসা হয়নি। আর আসা হলেও দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া টাইপের ব্যাপার।

যাই হোক, বীচটা সুন্দর, একটু নীরব। বিকেলে ভালই থাকে অবস্থা আর তেমন একটা ভীড় নেই বললেই চলে। আর পানির খুব কাছে একেবারে।

ঘুরে আসুন চট্টগ্রামের গোল্ডেন বীচ

আপনার মতামত দিন....

মতামত