প্রতিবছরের মতো এবারও অসংখ্য ধর্মপ্রণ মুসলমান বাংলাদেশ থেকে হজে যাচ্ছেন। এসব হজযাত্রীদের মধ্যে অধিকাংশই বয়ষ্ক। অনেকেই আছেন যাঁরা হজ পালন করতে গিয়ে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদ্‌রোগ, স্নায়ু ও বাতজনিত রোগে সৌদি আরবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাই হজে যাওয়ার আগে কিছু নিয়ম মেনে চলা খুবই জরুরি।

আপনি বা আপনার আত্মীয়দের মধ্যে হজ পালন করতে যাচ্ছেন এমন কেউ থাকলে জেনে নিতে পারেন সুস্থতা রক্ষায় যা করতে হবে।

হজ পালন করতে গিয়ে নানা আনুষ্ঠিকতায় প্রচুর হাঁটতে হয়। হঠাৎ করে অধিক হাঁটার ফলে শরীরে প্রচুর ক্লান্তি ও ব্যাথ্যা অনুভূত হতে পারে। তাই আরামদায়ক জুতো কেনার পাশাপাশি সেই জুতো পরেই আগে থেকে একটু হাঁটার অভ্যাস করে নেওয়া ভালো।

মক্কার শুষ্ক ও উষ্ণ আবহাওয়ায় সুস্থ থাকতে শরীরে প্রচুর তরল দরকার। তাই বেশি করে পানি, ফল ও ফলের রস খান। তবে ডায়বেটিস থাকলে পানি বা স্যালাইন খান, মিষ্টি পরিহার করুন। মনে রাখবেন, অল্পভোজন এবং অতিভোজন, দুটোই ক্ষতিকর।

আমাদের দেশের মানুষ আবহাওয়ার শুষ্কতার সাথে অভ্যস্ত না থাকায় অনেকেরই শ্বাসতন্ত্রে প্রদাহ ও শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ দেখা দেয়। ফলে খুসখুসে কাশি, গলা ব্যথা, সর্দি, হাঁচি, জ্বরে আক্রান্ত হয়। এমন অবস্থায় কুসুম গরম পানি দিয়ে গড়গড়া করবেন। অধিক জনসমাগমে মাস্ক ব্যবহার করা উচিৎ।

অধিক তাপমাত্রা সহ্য করতে না পেরে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে। তাই প্রখর রোদে একটানা হাঁটা বা পরিশ্রম থেকে বিরত থাকুন। ছাতা ব্যবহার করুন এবং কিছুক্ষণ পরপর বিশ্রাম নিন।
প্রয়োজনীয় কিছু ওষুধ, খাবার স্যালাইন, কটন ব্যান্ডেজ, আয়োডিন, স্যাভলন, অ্যান্টিসেপটিক ও পোড়ার মলম সঙ্গে রাখবেন। যাঁরা চশমা ব্যবহার করেন তারা একের অধিক চশমা সঙ্গে নিন
যেকোন রকম অসুস্থতায় বাংলাদেশ হজ মিশন বা নিকটস্থ হেলথ ক্যাম্পের সাহায্য নিতে কোন দ্বিধাবোধ করবেন না।

হজে যাওয়ার আগে জেনে নিন কিছু তথ্য

আপনার মতামত দিন....

মতামত